পাইলট আবিদের স্ত্রীর ব্রেইন ছাড়া সব কিছুই কাজ করছে

নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় নিহত ইউএস-বাংলার পাইলট আবিদ সুলতানের স্ত্রী আফসানা খানম লাইফসাপোর্টেই থাকবেন। ব্রেইন ছাড়া আফসানার শরীরের সব কিছুই কাজ করছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। বুধবার সকালে সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। লাইফসাপোর্ট চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তার অবস্থা অপরিবর্তিত। শুধু ব্রেইন ছাড়া তার সব কিছুই কাজ করছে বলে জানান নিউরোসায়েন্স হাসপাতালের যুগ্ম পরিচালক বদরুল আলম। তিনি জানান, আফসানার বায়োকেমিক্যাল প্যারামিটারে পরিবর্তন এসেছে। তার সোডিয়াম লেভেল বেড়ে গেছে। এটি এ মুহূর্তে একমাত্র শঙ্কার কারণ। এর আগে মঙ্গলবার হাসপাতালের যুগ্ম পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল আলম জানান, ক্যাপ্টেন আবিদের স্ত্রী বেঁচে আছেন। তবে তার অবস্থা সংকটাপূর্ণ। তবে তার কিডনি, হার্ট, লিভার সব সচল রয়েছে। তার রক্তচাপ ১২০/৮০। কিন্তু তার ব্রেন স্বাভাবিক রেসপন্স করছে না। যন্ত্রের সাহায্যে তার শ্বাস-প্রশ্বাস চলছে। আফসানা খানমের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে ডা. বদরুল বলেন, তার মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল বিঘ্ন ঘটায় আমরা সিটিস্ক্যান করার পর অস্ত্রোপচার করি। কিন্তু তিনি আবার স্ট্রোক করায় আমরা আরেকটি অপারেশন করি। এর পর আমরা তার মাথার খুলি খুলে রাখি। এটি তখনই করা হয়, যখন কারো মস্তিষ্কের ওপর অতিরিক্ত চাপ যায়।
এ চিকিৎসক আরও বলেন, শরীর স্বাভাবিকভাবে চলছে, আমরা তো তাকে মৃত বলতে পারি না। তবে এ মুহূর্তে তাকে বাইরে কোথাও নেওয়া সম্ভব নয়। আমরা তার চিকিৎসা চালিয়ে যাব। আগামীকাল সকাল ১০টায় তার চিকিৎসায় সাত সদস্যের আরেকটি মেডিকেল টিম গঠন করা হবে। ১২ মার্চ কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন বিমানবন্দরে অবতরণের সময় ইউএস-বাংলার বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। এতে ক্রুসহ ৫১ জনের মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনার পর বিমানটির প্রধান পাইলট আবিদ আহতাবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। পর দিন সকালে কাঠমান্ডুর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তার মৃত্যু হয়। আবিদের এমন করুণ মৃত্যু মেনে নিতে পারেননি স্ত্রী আফসানা। স্বামীকে হারিয়ে কখনও বাকরুদ্ধ কখনও অস্বাভাবিক আচরণ করছিলেন, তার স্বামী মারা যাননি, সবাই মিথ্যা কথা বলছে, আবিদ ফিরে আসবে, আবিদ তাকে সঙ্গে না নিয়ে একা চলে যেতে পারে না- এমন প্রলাপ বকতেন তিনি। স্বামীর শোকে মনস্তাত্ত্বিক চাপে রোববার নিজ বাসায় মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত সমস্যায় আক্রান্ত হন। এর পর থেকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। এর পর গুরুতর অবস্থায় আগারগাঁওয়ের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয় আফসানাকে। এদিকে গত সোমবার কাঠমান্ডু থেকে বিমান দুর্ঘটনায় নিহত ২৩ বাংলাদেশির সঙ্গে পাইলট আবিদ সুলতানের লাশও দেশে আসে। এদিন বিকালে অশ্রুসজল একমাত্র সন্তান তানভীর বিন সুলতান যখন বাবার লাশ গ্রহণ করছিলেন, তখন হাসপাতালের আইসিইউতে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছিলেন মা আফসানা খানম।
Share on Google Plus

About Sadia Afroja

    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a Comment