আগুন নিয়ে খেলছে ইসরাইল- আরব লীগ

ইসরাইলকে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছে আরব লীগ। এক বিবৃতিতে এর সেক্রেটারি জেনারেল আহমেদ আবুল গেইট বলেছেন, আগুন নিয়ে খেলছে ইসরাইল। এতে ইসলামিক দুনিয়ার সঙ্গে বড় ধরনের সঙ্কট তৈরি হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। ওদিকে মুসলিমদের কাছে আল আকসা মসজিদের হারাম আল শরীফ ও ইহুদিদের কাছে মাউন্ট টেম্বলে মেটাল ডিটেক্টর বসানো নিয়ে সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে কমপক্ষে ৫ ফিলিস্তিনি ও ৩ ইসরাইলি নিহত হয়েছে তাতে। এরপর দখলীকৃত পশ্চিম তীরে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করেছে ইসরাইল। এর প্রেক্ষিতে আহমেদ আবুল গেইট ওই বিবৃতি দিয়েছেন। ওই মেটাল ডিটেক্টর বসানো নিয়ে সহিংসতায় প্রথমে ফিলিস্তিনিদের হত্যা করা হয়। এরপর সহিংসতা ভয়াবহ রূপ নিলে ফিলিস্তিনিরা শুক্রবার হত্যা করে ৩ ইসরাইলিকে। ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক বন্ধ করে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। পরিস্থিতি সেখানে জটিল অবস্থা ধারণ করেছে। এর প্রেক্ষিতে আহমেদ আবুল গেইট বিবৃতিতে বলেছেন, জেরুজালেম হলো রেড লাইন বা শেষ সীমানা। এই সীমানা অতিক্রম করতে অনুমতি দিতে পারে না মুসলিম বা আরবরা। এখন যা ঘটছে তা দৃশ্যত পবিত্র ওই শহরে নতুন এক পদক্ষেপ নেয়া। আসলে ইসরাইল সরকার আগুন নিয়ে খেলছে। আরব লীগের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বুধবার মিশরের রাজধানী কায়রোতে জরুরি বৈঠকে বসবেন আরব লীগের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। উল্লেখ্য, শুক্রবার জুমার নামাজের পর পশ্চিম তীর ও জেরুজালেমে ইসরাইলের সেনাদের সঙ্গে কয়েক হাজার ফিলিস্তিনির ভয়াবহ সংঘর্ষ হয়। এ সময় তিন ফিলিস্তিনিকে হত্যা করে ইসরাইল। আহত হন অনেক মানুষ। উত্তেজিত ফিলিস্তিনিরা গাড়ির টায়ারে আগুন দিয়ে পাথর ছুড়লে ইসরাইলি সেনারা সরাসরি গুলি করে। রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। ওইদিন রাতের শেষের দিকে ওমর আল আবেদ নামে ২০ বছর বয়সী এক ফিলিস্তিনি রামাল্লাহর কাছে হালামিশ বসতির বেড়া ডিঙ্গিয়ে প্রবেশ করে ইসরাইলে। ওই সময় একটি পরিবারে নবজাতকের জন্ম নিয়ে আনন্দ চলছিল। সেখানে উপস্থিত হয়ে ওমর তিনজনকে কুপিয়ে হত্যা করে। এ সময় ওই বাড়ির আর্তনাদ, গোঙানির শব্দ শুনে প্রতিবেশী, অবসরে থাকা একজন সেনা সদস্য সেখানে ছুটে গিয়ে প্রকাশ্যে গুলি করে আহত করে ওমরকে। রোববার পবিত্র ওই স্থাপনার প্রবেশপথে নতুন নিরাপত্তা বিষয়ক সিসিটিভি স্থাপন করে ইসরাইল।
Share on Google Plus

About বাংলা খবর

    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a Comment