‘বিপর্যয়ের দায় আমার’ -তেরেসা মে’র দুঃখ প্রকাশ

রাজনৈতিক জুয়া খেলায় হেরে অবশেষে নিজ দলের এমপিদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করলেন বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে। নির্বাচনে ভয়াবহ বিপর্যয়ের বিষয়ে তিনি এমপিদের বলেছেন, এই বিপর্যয়ের দায় আমার। হাউজ অব কমন্সে পিছনের সারির দলীয় এমপিদের নিয়ে বৈঠকে এমন ক্ষমা প্রার্থনা করেন তিনি। ওদিকে তিনি উত্তর আয়ারল্যান্ডের ডেমোক্রেটিক ইউনিয়নিস্ট পার্টির (ডিইউপি) সমর্থন আদায়ে ব্যাপক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। আগামী ১৯ শে মে পার্লামেন্টে ভাষণ দেয়ার কথা রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের। কিন্তু প্রথা অনুযায়ী সরকারকে ওই ভাষণে নির্দেশিত প্রস্তাবগুলোকে আইনে পরিণত করার জন্য তা পাস করতে হয়। এবার তেরেসা মে সরকারের ওই ভাষণ পাস করানোর সক্ষমতা নিয়ে সংশয় রয়েছে। এমন অবস্থায় রাণীর ভাষণ বিলম্বিত হতে পারে বলে বলা হচ্ছে। একইভাবে ওই একই দিন ঐতিহাসিক ব্রেক্সিট আলোচনা শুরুর কথা। কিন্তু বৃটেনে যে ভঙ্গুর রাজনৈতিক পরিস্থিতি তাতে এ দুটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুই বিলম্বিত হতে পারে বলে ইঙ্গিত দেয়া হচ্ছে। এসব কথা জানিয়েছে লন্ডনের অনলাইন দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট। তেরেসা মের সবচেয়ে সিনিয়র একজন মন্ত্রী স্বীকার করেছেন ডিইউপির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সমঝোতা ব্যর্থ হলে রানীর ভাষণ বিলম্বিত করা হতে পারে। হাউজ অব কমন্সের পিছনের সারির এমপিদের বলা হয় ১৯২২ কমিটি। এর সদস্যদের নিয়ে বৈঠকে বসেছিলেন তেরেসা মে। ওই বৈঠক সাধারণ সময়ের চেয়ে অনেক বেশি সময় স্থায়ী হয়েছে। এক ঘন্টারও বেশি সময় এমপিরা প্রশ্নবাণে জর্জরিত করেছেন তেরেসা মে’কে। হাউজ অব কমন্সের কমিটি রুমের দরজা দিয়ে প্রবেশ করতেই একজন সাংবাদিক জোরে জানতে চান: আপনি কি নার্ভাস প্রধানমন্ত্রী? এ প্রশ্নের কোনো উত্তর দেন নি তিনি। সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান তিনি। ওই অনুষ্ঠানে এত মানুষের উপস্থিতি ছিল যে কনজারভেটিভ দলের হাউজ অব লর্ডসের একজন সদস্যকে সেখান থেকে চলে যেতে হয়। যারা ভিতরে ছিলেন তারা পরিস্থিতিকে ঘর্মাক্ত বলে আখ্যায়িত করেছেন। ওই বৈঠকে এমপিদের উদ্দেশে তেরেসা মে বলেছেন, এই হযরবল অবস্থার জন্য দায়ী আমি। আমিই এ অবস্থা থেকে মুক্তি দেবো। অনুষ্ঠানে উপস্থিতরা বলেছেন, সেখানে বক্তব্য দেয়ার সময় বার বার তেরেসা ‘সরি’ উচ্চারণ করেন। একজন এমপি বলেছেন, আমরা যতদিন চাইবো ততদিন তিনি ক্ষমতা অব্যাহত রাখতে চান। এ ছাড়া ওই বেঠকে ব্রেক্সিট নিয়েও আলোচনা হয়।
Share on Google Plus

About বাংলা খবর

    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a Comment