তিস্তা চুক্তি সইয়ের সম্ভাবনা কম



প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এবারের দিল্লি সফরে দীর্ঘ সময় ধরে ঝুলে থাকা তিস্তার পানি বন্টন চুক্তি সইয়ের সম্ভাবনা কম। তবে আগামীকাল থেকে শুরু হওয়া ওই সফরের ঘনিষ্ট প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে নিরাপত্তা, প্রতিরক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অন্তত ২৫টি চুক্তি সই হবে। বিকালে বার্তা সংস্থা পিটিআই’র বরাতে হিন্দুস্থান টাইমসের প্রতিবেদনে এমনটাই জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ-ভারত বিদ্যমান সহযোগিতা আরও গভীর করার লক্ষ্যে শেখ হাসিনার সফরে এবার মেজর ফোকাস বা বেশী গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে প্রতিরক্ষা খাতে। এর অংশ হিসাবে ৫০০ মিলিয়ন ডলারের ঋণ বা লাইন অব ক্রেডিটের আওতায় বাংলাদেশে মিলিটারি হার্ডওয়ার সাপ্লাইয়ের ঘোষণা দিয়েছে দিল্লি। এছাড়া দুই দেশ বাণিজ্য, বিনিয়োগ, পরিবহন এবং জ্বালানী খাতে সহযোগিতা বাড়াবে। তিস্তা চুক্তির বিষয়ে প্রতিবেদনে স্পষ্ট করেই বলা হয়, পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির তরফে এ চুক্তিতে আপত্তি থাকায় এবারের সফরে ভারত অর্থাৎ কেন্দ্রীয় সরকার চুক্তিটি সইয়ে আশাবাদী নয়। জানা গেছে, মমতা ব্যানার্জিকে অন বোর্ডে না নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার চুক্তিটি সইয়ের বিষয়ে সামনে এগুতে পারবে না। ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ড. মনেমোহন সিংয়ের ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসের ঢাকা সফরে তিস্তার পানি বন্টন চুক্তি সইয়ের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছিল। কিন্তু সেই সফরের একেবারে শেষ সময়ে এসে মমতা ব্যানার্জির আপত্তিতে তা স্থগিত হয়ে যায়। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের জন্য তিস্তার পানি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষত: শুষ্ক মৌসুমে, ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত। ওই সময়ে পানির প্রবাহ ৫০০০ কিউসেক থেকে অস্থায়ীভাবে ১০০০ কিউসেকের নীচে চলে আসে। প্রতিবেদনের সমাপনী অংশে তিস্তা চুক্তি বিষয়ে অবগত বিশ্বস্ত সূত্রের বরাত দিয়ে ফের বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী  হাসিনার এবারের সফরে এ চুক্তি সই হওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই কম।
Share on Google Plus

About Nejam Kutubi

    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a Comment