বঙ্গোপসাগরে হাঙ্গর শিকার, পাচার হচ্ছে বিদেশে

সুন্দরবনে বলেশ্বর নদীতে ট্রলারে করে হাঙ্গর শিকার ও পাচারের অভিযোগে উপকূলরক্ষীরা ১২ জন জেলেকে আটকের পর বন বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, পাচারের উদ্দেশ্যে হাঙ্গর শিকার অনেকদিন ধরেই চলছে। কোস্টগার্ডের কর্মকর্তারা বলছেন, বঙ্গোপসাগর থেকে আরোহন করা ১৮টি হাঙ্গর ট্রলারে করে পাচারের জন্যে নিয়ে যাওয়ার সময় শুক্রবার রাতে ওই জেলেদের গ্রেফতার করা হয়। হাঙ্গর, তিমি, ডলফিন ইত্যাদি শিকার বাংলাদেশে আইনত নিষিদ্ধ। "কিন্তু বণ্যপ্রাণী আইন অমান্য করে বাংলাদেশে এই হাঙ্গর শিকার বহুদিন ধরেই হচ্ছে।
সংঘবদ্ধভাবে একটা চক্র এই কাজটা করে আসছে। এখন হয়তো আরো সক্রিয় হচ্ছে।" বলছেন বন অধিদফতরের বন্যপ্রাণী সংরক্ষক তপন কুমার দে। তবে তিনি বলছেন বাংলাদেশে এ হাঙ্গর ধরা নিষিদ্ধ হলেও এখান থেকে পাচার বা ধরার নিয়ন্ত্রণের তেমনও কোনো আইন নেই। তিনি আরো বলেন, "হাঙ্গর দিয়ে খাবার রান্না করাসহ সবকিছুইতো হয়। বিভিন্ন ধরনের হাঙ্গরের যে বিভিন্ন উপকরণ আছে, তাদের যে দেহাবশেষ সেগুলোর বাণিজ্যিক ব্যবহার হয় বিভিন্ন দেশে। চাহিদা প্রচুর। এশিয়ার বিভিন্ন দেশে বিশেষ করে তাইওয়ান, কোরিয়া, ভিয়েতনামসহ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে পাচার করা হয় হাঙ্গর।'' সামুদ্রিক এসব প্রাণী নিয়ন্ত্রণের কোনো অবকাঠামো বনবিভাগে নেই উল্লেখ করে তপনকুমার দে বলেছেন "কোস্টগার্ড, নৌবাহিনীকে বলা হয়েছে এগুলোর নিয়ন্ত্রণের জন্য সাহায্য করতে। বিপদাপন্ন বণ্যপ্রাণীর মধ্যে হাঙ্গর অন্যতম। গভীর সমুদ্রে আন্তর্জাতিক সীমা পেরিয়ে আসা এসব প্রাণী এখন বিপদাপন্ন অবস্থাতেই আছে।"
সূত্র : বিবিসি
Share on Google Plus

About Sadia Afroza

    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a Comment